ইলিয়াস কাঞ্চনকে নিয়ে দেওয়া স্টাটাস ভাইরাল


প্রকাশের সময় :২২ নভেম্বর, ২০১৯ ৮:৩১ : পূর্বাহ্ণ

দীর্ঘ সময় ধরে সড়কে দুর্ঘটনা নিরোধের দাবিতে অবশ্য একজনই শুধু স্রোতের বিপরীতে লড়ে গেছেন… সময়টা অনেক, টানা ২৫ বছর! ৩০০টিরও বেশি ঢাকাই সিনেমায় অভিনয় করে যিনি পর্দার চাইতেও বাস্তব জীবনে একজন বড় মহানায়ক; তিনি আর কেউ নন- ইলিয়াস কাঞ্চন।

 

১৯৯৩ সালের অক্টোবরে হৃদয়বিদারক এক সড়ক দুর্ঘটনায় যিনি হারান তার সবচেয়ে কাছের মানুষ, তার স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চনকে। নিজের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের আলো ঝলমলে আঙ্গিনা ছেড়ে ২৫টি বছর ধরে যিনি আন্দোলন করেছেন নিরাপদ সড়কের দাবিতে।এরপর থেকে এখন পর্যন্ত দেশের সড়ককে নিরাপদ করে তুলতে ইলিয়াস করে চলেছেন সংগ্রাম!

 

 

সহধর্মিনীর অকাল মৃত্যুতে চুপ করে আর বসে থাকতে পারেননি তিনি।১৯৯৩ সালের ডিসেম্বরে সাধারণ এক পদযাত্রা দিয়ে শুরু, সেখান থেকে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ ২৫ বছর পর স্বীকৃতি পেয়েছে একটি সফল সামাজিক আন্দোলন হিসেবে।

 

 

 

বিগত ২৫ বছরে সরকার পরিবর্তন হয়েছে মোট চারবার, এই সময়ের ভেতর তিনি প্রত্যেক জনপ্রতিনিধিদের সংযুক্ত করার চেষ্টা করেছেন, চেয়েছেন মন্ত্রীদের হস্তক্ষেপ। কখনও আশ্বাস পেয়েছেন, নিরাশও হতে হয়েছে- থামেননি তিনি। বিভিন্ন সময়ে সেমিনার, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের মধ্যদিয়ে সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাস, জনমত সৃষ্টি ও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়ে গিয়েছে তার সংগঠন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)। স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চনের মৃত্যুদিন ২২ অক্টোবরকে পরবর্তীতে সরকার ‘নিরাপদ সড়ক দিবস’ হিসেবে ঘোষণাও দিয়েছে।

 

 

দেশের প্রতিটি প্রান্তে নিরাপদ সড়কের দাবি নিয়ে গিয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। তার পদক্ষেপগুলোর মধ্যে রয়েছে সড়ক দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ আদায়ের আইনী সহায়তা প্রদান, সড়ক দুর্ঘটনায় প্রকৃত দোষীদের আইনের হাতে সোপর্দ করার মত কাজ। নিজের জমিতে সড়ক দুর্ঘটনায় আহতদের জন্য হাসপাতাল নির্মাণেরও চিন্তা করছেন এই ব্যক্তিত্ব। সংগঠন পরিচালনার জন্য এই দীর্ঘ সময়ে অভিনয় করেছেন মাত্র সাতটি সিনেমায়। আর সংগঠনের কার্যক্রমের সিংহভাগ চলছে তার ব্যক্তিগত অনুদানের টাকায়।

 

 

একদিকে ইলিয়াস কাঞ্চন, তারই বিপরীতে শাজাহান খান একজন ব্যক্তিত্ব, শিক্ষার্থীদের মৃত্যুর খবরের প্রতিক্রিয়ায় যার মুখে খেলে গিয়েছিল ‘ভুবন ভোলানো হাসি’, যাকে ধরা হয় সড়ক পরিবহনের ‘মাফিয়া’। এই ব্যক্তিকেও শাসিয়ে এক হাত নিতে ভয় পাননি ইলিয়াস কাঞ্চন। জনসম্মুখে চাঁদাবাজি আর অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন তার বিরুদ্ধে লাইভ টকশোতে। যে কাজ গুলোর দায়িত্ব নেওয়ার কথা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং সড়ক পরিবহনের নেতৃবৃন্দের, সেখানে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ এর হয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন মাঠে নেমেছেন সমস্যার সমাধানে। বর্তমানে সচল একটি ওয়েব পোর্টাল হিসেবে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আত্মপ্রকাশ করেছে ‘নিরাপদ নিউজ’ নামে।

 

আন্দোলনের দীর্ঘ পরিক্রমায় তিনি ২০১৮ সালে পেয়েছেন জাতীয় সম্মান হিসেবে একুশে পদক।

 

 

তিনি আসলেই বাস্তবের হিরো!
কিন্তু আমরা পৃথিবীর নিকৃষ্ট জাতি,তার প্রতিদান খুবই সুন্দর করে দিয়েছি।স্যান্ডেল জুতো দিয়ে গলার মালা বানিয়ে ওর ভাস্কর্যে পরিয়ে দেওয়া।

পরিশেষে একটা কথাই বলব,যে দেশে গুনিজনের কদর নাই,সে দেশে গুনিজন’র জন্ম না হওয়াই বেটার।

 

ফেসবুক থেকে সংগৃহিত

ট্যাগ :

আরো সংবাদ



আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর   ডিসেম্বর »
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০